অবিলম্বে ডাক্তার,নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মী নিয়োগের দাবি অল ত্রিপুরা গভঃ ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশনের - আরশি কথা

আরশিকথা ঝলক

Home Top Ad

test banner

Post Top Ad

test banner

শুক্রবার, ২৪ জুলাই, ২০২০

অবিলম্বে ডাক্তার,নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মী নিয়োগের দাবি অল ত্রিপুরা গভঃ ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশনের

তন্ময় বনিক,আগরতলা,আরশিকথাঃ
রাজ্যে যেখানে ৩৭০০ জন ডাক্তার থাকার কথা।সেখানে আছেন মাত্র ১০০০ জন।এই স্বল্প সংখ্যক ডাক্তার নিয়েই করোনা মহামারীতে চিকিৎসা পরিষেবা দিয়ে যেতে হচ্ছে।এখন পর্যন্ত ১৪ জন ডাক্তার করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।কিছু দিন পর পর ডাক্তার,নার্স,স্বাস্থ্যকর্মীদের কোয়ারেন্টাইনে যেতে হচ্ছে।এই অবস্থায় অবিলম্বে ডাক্তার,নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মী নিয়োগের দাবি তুলেছে অল ত্রিপুরা গভঃ ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন।

শুক্রবার (২৪ জুলাই) আগরতলা প্রেস ক্লাবে অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে এক সাংবাদিক সম্মেলনে তাদের কিছু দাবি দাওয়া এবং বক্তব্য তুলে ধরা হয়।সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ডাঃ রাজেশ চৌধুরী এক প্রশ্নের উত্তরে বলেন,করোনা মোকাবিলায় বা প্রতিরোধে রাজ্য সরকার এখন পর্যন্ত যা যা পদক্ষেপ নিয়েছে তা যথেষ্ট নয়।তবে ডাক্তারদের অনেক দাবিই পূরণ হয়েছে।অনেক দাবি পূরণ হয়নি।স্বাস্থ্য দপ্তর সেই ব্যাপারগুলি দেখছে।রাজ্যে ৩৭ লক্ষ জনসংখ্যার অনুপাতে ৩৭০০ জন ডাক্তার থাকার কথা।আছে মাত্র ১০০০ জন।এই অবস্থায় অর্থাৎ বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে তাদের মূল দাবি হচ্ছে অবিলম্বে ডাক্তার,নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীর স্বল্পতা দূর করা,রাজ্যে একটি ডেডিকেটেড কোভিড হাসপাতাল স্থাপন করা।তা না হলে একই হাসপাতালে যেহেতু অন্য রোগেরও চিকিৎসা করাতে হচ্ছে তাতে সমস্যা দেখা দিচ্ছে।তৃতীয়ত, কোভিড সেন্টারে যারা কাজ করছেন তাদের পাশাপাশি মাঠে ঘাটে যারা কাজ করছেন তাদেরকেও যেন ইনসেন্টিভ দেওয়া হয়।ডাঃ চৌধুরী করোনা মোকাবিলায় মানুষকে সতর্ক ও সচেতন হওয়ার পরামর্শ দেন।
তিনি এও বলেন যে আইন করে বা বল প্রয়োগ করে সব সমস্যার সমাধান হয় না।মানুষকে সচেতন হতে হবে।এন৯৫ মাস্ক সবার পরার প্রয়োজন নেই।তবে দিনে দুই /তিনটা সার্জিক্যাল মাস্ক ব্যবহারের পরামর্শ দেন।৭০ শতাংশ অ্যালকোহল যুক্ত স্যানিটাইজার ব্যবহারের জন্য বলেন।হ্যান্ডওয়াশ ব্যবহারের ক্ষেত্রে ভালো ভাবে কনুই পর্যন্ত ধোয়ার পরামর্শ দেন।ভিড় এড়িয়ে চলার এবং সবার সঙ্গে তিন থেকে ছয় ফুট দূরত্ব বজায় রাখার জন্য বলেন। সাংবাদিকদেরকেও পরামর্শ দেন কম্পিউটার,ক্যামেরা সহ যাবতীয় ব্যবহার্য সামগ্রী যেন প্রতিদিন স্যানিটাইজ করা হয়।তাছাড়া ২৭ জুলাই থেকে বাড়ি বাড়ি সমীক্ষার যে কাজ শুরু হচ্ছে তাতে সবাইকে অংশ নেওয়ার জন্য বলেন।কেউ যেন নিজেকে লুকিয়ে না রাখেন।করোনা হলেই মৃত্যু এমনটা নয়।মানুষ যেন চিকিৎসায় এগিয়ে আসেন।এদিনের সাংবাদিক সম্মেলনে সংগঠনের অন্যান্য বরিষ্ঠ ডাক্তাররাও উপস্থিত ছিলেন।


ছবিঃ সুমিত কুমার সিংহ
আরশিকথা

২৪শে জুলাই ২০২০   

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Post Bottom Ad

test banner