পদ্মশ্রী পদকে ভূষিত হলেন বাংলাদেশের সনজীদা খাতুন এবং মুক্তিযোদ্ধা কাজী সাজ্জাদঃ ঢাকা - আরশি কথা

আরশিকথা ঝলক

Home Top Ad

test banner

Post Top Ad

test banner

সোমবার, ২৫ জানুয়ারী, ২০২১

পদ্মশ্রী পদকে ভূষিত হলেন বাংলাদেশের সনজীদা খাতুন এবং মুক্তিযোদ্ধা কাজী সাজ্জাদঃ ঢাকা

আবু আলী, ঢাকা, আরশিকথা ।। সংস্কৃতি ব্যক্তিত্ব সনজীদা খাতুন এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব.) কাজী সাজ্জাদ আলী জহির বীরপ্রতীক ভারত সরকারের অন্যতম সম্মানীয় পদক ‘পদ্মশ্রী ২০২১’-তে ভূষিত হয়েছেন। ঢাকার ভারতীয় মিশনের তরফ থেকে পাঠানো এক বার্তায় জানানো হয়েছে, পদ্মশ্রী পদক পাওয়ায় এই গুণী দুই ব্যক্তিত্বকে অভিনন্দন জানিয়েছে ভারত সরকার। বার্তায় বলা হয়, ‘ভারত সরকার দ্বারা পদ্মশ্রী ২০২১ খেতাবে ভূষিত হওয়ায় সনজীদা খাতুন এবং লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব.) কাজী সাজ্জাদ আলী জহিরকে অভিনন্দন। সনজীদা খাতুনের জন্ম ১৯৩৩ সালের ৪ এপ্রিল। তার বাবা ড. কাজী মোতাহার হোসেন ছিলেন বিখ্যাত পণ্ডিত ও জাতীয় অধ্যাপক। তিনি বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের অন্যতম ব্যক্তিত্ব। সনজীদা খাতুন একাধারে রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী, লেখক, গবেষক, সংগঠক, সংগীতজ্ঞ ও শিক্ষক। তিনি বাংলাদেশের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান ছায়ানটের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। এছাড়া প্রচলিত ধারার বাইরে ভিন্নধর্মী একটি শিশুশিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নালন্দা’র সভাপতি। সনজীদা খাতুন ১৯৫৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে সম্মানসহ স্নাতক এবং ১৯৫৫ সালে ভারতের বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়, শান্তিনিকেতন থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। পরে ১৯৭৮ সালে একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন। অন্যদিকে লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব.) কাজী সাজ্জাদ আলী জহির ১৯৫১ সালের ১১ এপ্রিল জন্ম নেন। তিনি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। স্বাধীনতা যুদ্ধে সাহসিকতার জন্য তাকে বীরপ্রতীক খেতাবে ভূষিত করে বাংলাদেশ সরকার। সাজ্জাদ আলী জহির ১৯৬৯ সালের শেষে পাকিস্তান সেনাবাহিনীতে ক্যাডেট হিসেবে যোগ দেন। ১৯৭১ সালে পাকিস্তানের কাকুল সামরিক অ্যাকাডেমিতে সিনিয়র ক্যাডেট হিসেবে প্রশিক্ষণরত ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে আগস্ট মাসের শেষে তিনি পাকিস্তান থেকে পালিয়ে ভারতে গিয়ে যুদ্ধে যোগ দেন।


ছবিঃ সংগৃহীত


আরশিকথা বাংলাদেশ সংবাদ

২৫শে জানুয়ারি ২০২১


 

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Post Bottom Ad

test banner