আগরতলা পুর নিগমের ৫,২১ এবং ৪৬ নং ওয়ার্ড কনটেইনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষিত - আরশি কথা

আরশিকথা ঝলক

Home Top Ad

test banner

Post Top Ad

test banner

বুধবার, ১২ মে, ২০২১

আগরতলা পুর নিগমের ৫,২১ এবং ৪৬ নং ওয়ার্ড কনটেইনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষিত

নিজস্ব প্রতিনিধি, আগরতলা, আরশিকথাঃ


স্বাস্থ্য দপ্তরের রিপোর্ট অনুযায়ী আগরতলা পুর নিগমের ৫,২১ এবং ৪৬ নং ওয়ার্ডে কোভিড-১৯ সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় এই ওয়ার্ডগুলি এবং তার চারপাশের এলাকাকে ভৌগোলিকভাবে যদি কোয়ারেন্টিন করা না হয় তাহলে এই এলাকা কোভিড-১৯ হটস্পট জোনে পরিণত হতে পারে। তাই বিপর্যয় ব্যবস্থাপনা আইনে প্রাপ্ত ক্ষমতাবলে সংক্রমিত এলাকার ভিতরে এবং এলাকায় যানচলাচল জনসাধারণের আগমন-নির্গমন নিয়ন্ত্রণ করার জন্য পশ্চিম ত্রিপুরা জেলার জেলাশাসক ও সমাহর্তা রাভেল হেমেন্দ্র কুমার ৫,২১ ও ৪৬ নং ওয়ার্ডের সকল এলাকাকে কনটেইনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষণা করে কিছু বিধিনিষেধ জারি করেছেন।কনটেইনমেন্ট জোনে জনসাধারণ ও যানবাহনের যাতায়াত বন্ধ থাকবে। শুধুমাত্র কনটেইনমেন্ট পরিকল্পনা কার্যকর করার কাজে নিযুক্ত ব্যক্তি বা যান এবং স্বাস্থ্যপরিসেবা সহ জরুরী পরিষেবার সাথে যুক্ত ব্যক্তিরা এই নিষেধাজ্ঞার বাইরে থাকবেন। এদিকে মুদির দোকান, ঔষধের দোকান ছাড়া কনটেইনমেন্ট জোনে বাকি সমস্ত দোকান, প্রতিষ্ঠান, পার্ক ইত্যাদি বন্ধ থাকবে। যেহেতু সন্ধ্যা ৬ টা থেকে সকাল পাঁচটা পর্যন্ত ইতিমধ্যে কারফিউ রয়েছে তাই নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি বিক্রয়কারী দোকান সকাল ৫ টা থেকে সন্ধ্যা ৬ টা পর্যন্ত খোলা থাকবে। উল্লিখিত ওয়ার্ডে বসবাসকারী মানুষের চলাচল নিয়ন্ত্রিত থাকবে। শুধুমাত্র ওয়ার্ডের মধ্যে খোলা দোকান থেকে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ক্রয়ের জন্য তারা বের হতে পারবেন। সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড এলাকায় দুই বা ততোধিক লোকের জমায়েত হতে পারবে না। এবং পশ্চিম জেলার পুলিশ সুপার ওয়ার্ডের মধ্যে এবং ওয়ার্ডে আসা-যাওয়ার পয়েন্টে কঠোর নজরদারির বজায় রাখবেন। পাশাপাশি জরুরী পরিষেবা প্রদানকারী ব্যক্তিদের পরিচয় পত্র দেখেই প্রবেশ পয়েন্টে থাকা নিরাপত্তারক্ষীরা কনটেইনমেন্ট জোনে ঢুকতে দেবেন। সংশ্লিষ্ট এলাকায় নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সরবরাহ করা হবে একমাত্র আগরতলা পৌরনিগম কর্তৃপক্ষ দ্বারা চিহ্নিত সরবরাহকারীর মাধ্যমে। আপৎকালীন পরিস্থিতিতে পানীয় জল ও স্বাস্থ্যবিধি দপ্তর ট্যাংকার দিয়ে জল সরবরাহ করবে। এমনই আরো বেশ কিছু বিধিনিষেধ জারি করা হয়েছে সংশ্লিষ্ট এলাকায়। এই আদেশ ১৩ মে সকাল পাঁচটা থেকে ২২ মে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত কার্যকর থাকবে। আদেশ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে আইপিসি এবং বিপর্যয় ব্যবস্থাপনা আইনে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বুধবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে এমনটাই জানালেন মন্ত্রী রতন লাল নাথ।


আরশিকথা ত্রিপুরা সংবাদ

১২ই মে ২০২১
 

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Post Bottom Ad

test banner