সমাজসেবা ? -- দেবাশীষ মজুমদার, উত্তর চব্বিশ পরগণা - আরশি কথা

আরশিকথা ঝলক

Home Top Ad

test banner

Post Top Ad

test banner

মঙ্গলবার, ১৬ জুন, ২০২০

সমাজসেবা ? -- দেবাশীষ মজুমদার, উত্তর চব্বিশ পরগণা

ছোটবেলাতে ক্লাস শিক্ষা নিতে গিয়ে সমাজসেবা নামক শব্দটার সাথে পরিচিত  হই।তারপর পরিবেশ পরিস্থিতি বিষয় তুলে ধরে আলোচনার মাধ্যমে সমাজসেবার সংজ্ঞা বদলে যায়।জীবনে সমাজসেবা নামক বিষয় বোঝার সাথে সাথে কাজ করেছি নিজের মত কিংবা সমষ্টিগত ভাবে। বর্তমান সময়ে করোনা ভাইরাসে সারা বিশ্ব কাঁপছে,তারসাথে আমাদের রাজ্যে বেশ কিছুটা এলাকায় প্রাকৃতিক বিপর্যয় আমফান ঝড়ে বেসামাল অবস্থা।দেশ জুরে লক ডাউন জারি কয়েকমাস।সমাজ আজ এক অস্থির পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছে ,সেইসাথে অর্থনৈতিক অবস্থাও টালমাটাল,খাদ্য সংকট তো আছেই।বেঁচে থাকার সমস্যা আজ জীবনের চলার পথে মূল বিষয়।তবু লড়াই - সংগ্রাম করে নিজের জন্য,পরিবার - সমাজের জন্য,দেশের জন্য বাঁচতে হবে।দেশ আমার জন্য কী করেছে?কেন এই অনিয়ম চলছে?এই সময় এখন আমাদের জন্য সত্যি কি আছে?আদৌ কী এই সব কথা ভেবে পেট ভরবে?একজন প্রাইভেট শিক্ষক স্যানিটাইজার নিয়ে রাস্তাতে বিক্রি করছেন,একটা অভাবি ছাত্র সবজী বেচে পরিবারকে সাহায্য করছে।একটা শ্রেনীর মানুষ মেঠো ইঁদুর,শামুক,কচু খেয়ে জীবন অতিবাহিত করছেন।সরকারি নির্দেশিকা মেনে চলছেন সরকারী কিংবা আধা সরকারী জাতীয় বেশ কিছু সংস্থার কর্মচারী।বাকীরা কী করবেন?চাল আছে,তরকারি নেই।অর্থ শেষ পথে। বিবেক ভীষন বড়।বিজ্ঞধারী মানুষদের কথা শুনে মন ভরে না,পেটও ভরে না।তবু বাঁচতে হবে।অপরাধমূলক কাজ করবার মতো সাহস নেই ।তবু তারা মানুষ।একদিকে করোনা ভাইরাস,অপরদিকে সদ্য ঘটে যাওয়া আমফান ঝড় , ঝড়ে বাড়ির টালিগুলো ভেঙে গেছে।বাড়িতে সবার উচ্চশিক্ষার ডিগ্রী আছে , কিন্তু সেটা বেচে তো আর খাবার কেনা যাবে না।কোন পথের ঠিকানা তাদের জন্য যে বরাদ্দ রয়েছে ,জানা নেই তার উত্তর।আর সেই সমাজসেবা নাম করে বেশ কিছু সংস্থা সহজে মানুষের বিবেক,সততাকে ভাঙিয়ে টাকা ইনকাম করছে..অদ্ভুত!!

ছবিঃ সৌজন্যে ইন্টারনেট

দেবাশীষ মজুমদার
উত্তর চব্বিশ পরগণা
পশ্চিমবঙ্গ

১৬ই জুন ২০২০

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Post Bottom Ad

test banner