পুলিশে চাকরি প্রার্থীদের আন্দোলন...দক্ষতার সঙ্গে নিয়ন্ত্রণ করলো পুলিশ - আরশি কথা

আরশিকথা ঝলক

Home Top Ad

Responsive Ads Here

Post Top Ad

Responsive Ads Here

বুধবার, ৪ জুলাই, ২০১৮

পুলিশে চাকরি প্রার্থীদের আন্দোলন...দক্ষতার সঙ্গে নিয়ন্ত্রণ করলো পুলিশ

তন্ময় বনিক,আগরতলাঃ
আগেই সরকারি প্রেস রিলিজে খবরের কাগজে জানানো হয়েছিলো ৪ জুলাই মুখ্যমন্ত্রীর জনতার দরবার বন্ধ থাকবে। তাছাড়া মুখ্যমন্ত্রী যে দিল্লীতে অবস্থান করছেন সে খবর দুই দিন ধরে খবরের কাগজগুলিতে পরিবেশিত হচ্ছে। কিন্তু আশ্চর্যজনক ভাবে বুধবার(৪জুলাই) সকালে মুখ্যমন্ত্রীর সরকারি আবাসের সামনে জড়ো হয় প্রায় সহস্রাধিক যুবক। এরা পুলিশে চাকরির কর্মপ্রার্থী বলে দাবি করে। তাদের অভিযোগ ২০১৭ সালে পুলিশে কনস্টেবল পদে নিয়োগের সাক্ষাৎকার হয়েছিলো। কিন্তু এখন পর্যন্ত নিয়োগপ্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়নি। নয়া রাজ্য সরকারের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে একাধিকবার সাক্ষাৎ করেছিলেন এরা। রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে পুরনো নিয়োগনীতি বাতিল করা হলেও পুলিশের কনস্টেবল পদে এই কর্মপ্রার্থীরা নাছোড়বান্দা। বুধবার সকালে প্রায় সহস্রাধিক যুবকের উমাকান্ত একাডেমীর সামনে একজোট হতে দেখে নড়েচড়ে বসে পুলিশ প্রশাসন। 
পশ্চিম আগরতলা থানা থেকে ছুটে আসেন পুলিশ আধিকারিকরা। নামানো হয় টিএসআর জওয়ানদের। 
পুলিশ ঐ যুবকদের চলে যেতে বললে এরা পুলিশের সঙ্গে বিতর্কে জড়িয়ে পড়ে। পুলিশের পক্ষ থেকে অনুরোধ জানানো হয় আইনগতভাবে থানার অনুমোদন নিয়ে তারা যেন নির্দিষ্ট জায়গায় জড়ো হয়। তাছাড়া মুখ্যমন্ত্রী আসলে অর্থাৎ পরবর্তী জনতার দরবারে যেন দু'তিনজন প্রতিনিধি গিয়ে চাকরির ইস্যুতে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেন। কিন্তু তারা তা মানতে নারাজ। উমাকান্ত একাডেমীর সামনে থেকে সরে গিয়ে এরা উত্তর গেইট সংলগ্ন এলাকায় জড়ো হতে থাকে। এরই মধ্যে খবর পৌঁছে যায় পূর্ব আগরতলা থানার পুলিশের কাছে। ছুটে আসেন থানার ও.সি সহ অন্যান্য আধিকারিকরা। 
হঠাৎই রাস্তার পাশে, দোকানের কিনারে, আনাচে কানাচে যুবকদের জড়ো হতে দেখে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে পথচলতি মানুষ সহ স্থানীয় জনগণ ও ব্যবসায়ীদের মধ্যে। পূর্ব আগরতলা থানার পুলিশ ঐ যুবকদের সরে যাওয়ার অনুরোধ করলে কোনও ভাবেই তারা তা মানছিলো না। শেষপর্যন্ত পরিস্থিতি নাগালের বাইরে চলে যাওয়ার আগেই মাঠে নামেন পশ্চিম জেলার পুলিশ সুপার অজিত প্রতাপ সিং। নামানো হয় পুলিশ ও টিএসআর জওয়ানদের। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয় চার যুবককে। ধীরে ধীরে কেটে পড়ে অন্য যুবকরা। এই ঘটনার পেছনে কোনও রহস্য বা চক্রান্ত আছে কিনা তা জানতেই চার যুবককে আটক করা হয়। তবে তথ্যভিজ্ঞ মহলের একটি অংশের অভিমত মুখ্যমন্ত্রীর জনতার দরবার বুধবার বন্ধ থাকবে বলে আগাম জানানো হলেও কেন এতো সংখ্যক যুবক একসঙ্গে জড়ো হলো সেটাই বড় প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে। এর পেছনে চক্রান্ত রয়েছে বলে মনে করেন তারা।

ছবিঃ সুমিত কুমার সিংহ
৪ঠা জুলাই ২০১৮ইং                 

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Post Bottom Ad

Responsive Ads Here