হৃদরোগের ঝুঁকি এড়াতে যেসব খাবার খাবেন: -- আরশিকথায় জানালেন পুষ্টিবিদ রুবাইয়া পারভীন রীতি - আরশি কথা

আরশিকথা ঝলক

Home Top Ad

test banner

Post Top Ad

test banner

বৃহস্পতিবার, ৩ অক্টোবর, ২০১৯

হৃদরোগের ঝুঁকি এড়াতে যেসব খাবার খাবেন: -- আরশিকথায় জানালেন পুষ্টিবিদ রুবাইয়া পারভীন রীতি

আমাদের দেহের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ হল হৃৎপিন্ড। তাই আমাদের উচিৎ শরীরের সমস্ত অংশের পাশাপাশি হৃৎপিন্ডকে খুব যত্নে রাখা। সুস্থ ও স্বাভাবিক জীবন-যাপন এবং সঠিক খাদ্যাভ্যাসের মাধ্যমেই একজন মানুষের হৃদরোগ হওয়ার ঝুঁকি কম থাকে। অবশ্যই হার্ট ভাল রাখতে হলে ওজন নিয়ন্ত্রনে রাখা জরুরি। এমন অনেক প্রকারের খাবার আছে যা হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়। যেমন -
* গ্রীন টিঃ গ্রীন টিতে ক্যাটেচিন নামক এন্টি অক্সিডেন্টের পরিমান বেশি পরিমানে থাকে যা হৃদরোগের বিরুদ্ধে লড়াই করে। নিয়মিত গ্রীন টি পান করলে হৃৎপিন্ড সুস্থ থাকে।
* রসুনঃ রসুন হার্টের জন্য অনেক ভাল। নিয়মিত রসুন ব্লাঞ্চিং ( গরম পানিতে ২ মিনিট ফুটানো) করে খেলে অথবা তরকারিতে আস্ত রসুন খেলে হার্ট সতেজ থাকে।
* ডার্ক চকলেটঃ ডার্ক চকলেট মস্তিষ্কের নার্ভ সিস্টেমকে সতেজ রাখে যার ফলে হাইপারটেনশন বা হৃদরোগের ঝুঁকি কমে।
* সবুজ শাক-সবজি ও সালাদঃ সবুজ শাক-সবজি ও সালাদে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন, মিনারেলস, এন্টিঅক্সিডেন্ট থাকে যা হার্টের জন্য ভাল।
* মাশরুমঃ মাশরুমে এক ধরনের এন্টিঅক্সিডেন্ট ও প্রোটিন আছে যা হার্ট এট্যাকের পাশাপাশি ক্যান্সার প্রতিরোধ করে।
* সামুদ্রিক মাছঃ সামুদ্রিক মাছে ওমেগা ৩ ও ওমেগা ৬, ভিটামিন ডি ইত্যাদি আছে। নিয়মিত সামুদ্রিক মাছ গ্রহণে হার্ট সুস্থ থাকে।
* ওমেগা ৩ ও ওমেগা ৬ যুক্ত ওয়েলঃ যেকোন ভেজিটেবল তেল বিশেষ করে যেসব তেলে ওমেগা ৩ আছে সেসব তেল হার্টের জন্য ভাল। যেমন- অলিভ ওয়েল, ক্যানোলা ওয়েল, সানফ্লাওয়ার ওয়েল, সরিষার তেল এগুলোতে PUFA আছে অর্থাৎ পলি আনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি এসিড যা হার্টের জন্য ভাল।
* কাঠবাদামঃ কাঠবাদাম মস্তিষ্কের বুদ্ধি বৃদ্ধির পাশাপাশি হার্ট ভাল রাখে।
* ব্ল্যাক কফিঃ ব্ল্যাক কফিতে এন্টিঅক্সিডেন্ট আছে যা নার্ভ সিস্টেমকে নিয়ন্ত্রণে রাখার পাশাপাশি হার্ট সতেজ রাখে।
* আদাঃ আদাতেও এন্টিঅক্সিডেন্ট আছে যা হার্টকে সুস্থ রাখে। নিয়মিত আদা চা, আদা পানি খাওয়া যেতে পারে।
* ডিমের সাদা অংশঃ ডিমের সাদা অংশে ওমেগা ৩ আছে যা হার্টের জন্য ভাল। তবে অনেকের মধ্যে ভুল ধারণা আছে যে ডিমের কুসুম হার্টের জন্য খারাপ। একজন হৃদরোগী সপ্তাহে অন্ততপক্ষে ৪ দিন সকালে কুসুমসহ ডিম সিদ্ধ খেতে পারবেন। এতে কোন স্বাস্থ্যঝুকি নেই।
* তরল ও নরম খাবারঃ কম তেল ও মশলাযুক্ত যেকোন তরল খাবার যেমন ভেজিটেবল স্ট্যু, স্যুপ, ব্ল্যাক চা, ঝোলের তরকারি, লাল চিড়া, ওটমিল ইত্যাদি হার্টকে সুস্থ রাখে।
* টকফলঃ যেকোন টক জাতীয় ফল বিশেষ করে আমলকী, লেবু, মালটা ইত্যাদি হার্টএট্যাকের ঝুঁকি কমায়।
এমন অনেক খাবার আছে যেগুলো হার্টের জন্য খারাপ যেমন -
* অতিরিক্ত তেল ও চর্বিযুক্ত খাবার রক্তের সাথে মিশে ধীরে ধীরে হার্ট ব্লক করে। * গরুর মাংস, মাংসের চর্বি, চিংড়ি মাছ বিশেষ করে চিংড়ি মাছের মাথায় ক্ষতিকারক কোলেস্টেরল থাকে যা দিনের পর দিন গ্রহণে হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয়। * অতিরিক্ত লবন ও চিনি হার্ট ফাংশনকে ড্যামেজ করে। * সোডা জাতীয় খাবার, প্রসেসড ফুড, আচার, হ্যাম, সসেজ, কোল্ড ড্রিংকস হার্টের জন্য ক্ষতিকর। * ধূমপান ও মদ্যপানে হৃদরোগের মারাত্মক পর্যায়ে যাওয়ার পাশাপাশি ক্যান্সার হয়। শুধুমাত্র খাবারের মাধ্যমেই যে হার্টকে ভাল রাখা যায় তা নয়। এর পাশাপাশি নিয়মিত হাঁটতে হবে, ব্যায়াম করতে হবে এবং অবশ্যই সবসময় হাসিখুশি থাকতে হবে।

রুবাইয়া পারভীন রীতি পুষ্টিবিদ, অ্যাক্রো মেডিকেল
বাংলাদেশ

ছবিঃ ইন্টারনেটের সৌজন্যে

৩রা অক্টোবর ২০১৯

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Post Bottom Ad

test banner