ভারত সাহায্য না করলে ইতিহাস অন্যরকম হতো: পররাষ্ট্রমন্ত্রী, বাংলাদেশ - আরশি কথা

আরশিকথা ঝলক

Home Top Ad

test banner

Post Top Ad

test banner

রবিবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০২০

ভারত সাহায্য না করলে ইতিহাস অন্যরকম হতো: পররাষ্ট্রমন্ত্রী, বাংলাদেশ

আবু আলী, ঢাকা, আরশিকথা ॥

‘ভারত আমাদের সবসময়ের বন্ধু, আমাদের বিজয়ে তাদেরও যথেষ্ট অহংকার করার কারণ আছে। ভারত যদি আমাদের সাহায্য না করতো তাহলে ইতিহাস অন্যরকম হতো।’ ১৩ ডিসেম্বর রবিবার নিজ দপ্তরে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন এ কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের বিজয়, এটা বাংলাদেশের বিজয়, আর সেইসঙ্গে এটা ভারতেরও বিজয়। কারণ ভারতের সহায়তায় আমরা কিন্তু সেই ১৬ ডিসেম্বরের বিজয় অর্জন করেছি। তারা যদি আমাদের সাহায্য না করতো তাহলে ইতিহাস অন্যরকম হতো। শুধু ১৬ ডিসেম্বর নয়, তারা (ভারত) অনেকদিন ধরে আমাদের সাহায্য করেছে এবং ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী যে অবদান রেখেছেন তা আমাদের অবশ্যই স্বীকার করতে হবে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী কয়েক মাস আগে থেকেই বাংলাদেশের জন্য পৃথিবীর সব রাষ্ট্রনায়কের কাছে চিঠি লিখেছেন। তারপর তিনি শুভেচ্ছা সফরে গিয়েছেন। তিনি (ভারতের প্রধানমন্ত্রী) ইউরোপ, আমেরিকা, রাশিয়া গিয়েছেন এবং বাংলাদেশে নির্যাতনের তথ্য বিশ্বের কাছে তুলে ধরেছেন।’ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘পাকিস্তান সরকার যখন ৪ ডিসেম্বর ভারতের ওপর আক্রমণ করল, তখন ভারত যুদ্ধ ঘোষণা করে। ৬ ডিসেম্বর ভারত সরকার ওই সময়ের বাংলাদেশের অস্থায়ী সরকার প্রধানকে জানাল যে ভারত বাংলাদেশকে একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। এগুলো আমাদের জন্য বড় পাওয়া। ভারতীয় সৈন্যরা আমাদের মুক্তি সংগ্রামে রক্ত দিয়েছে। সুতরাং আমাদের মধ্যে রক্তের সম্পর্ক, ঐতিহাসিক সম্পর্ক। ভারত আমাদের সবসময়ের বন্ধু, আমাদের বিজয়ে তাদেরও যথেষ্ট অহংকার করার কারণ আছে। শুধু তাই নয়, বঙ্গবন্ধুকে জীবিত অবস্থায় দেশে ফিরিয়ে আনার েেত্রও তৎকালীন ভারত ও ব্রিটিশ সরকারের যে অবদান রয়েছে, তা স্বীকার করতে হবে। এজন্য আমরা ভারতের প্রতি যথেষ্ট কৃতজ্ঞ।’ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘তবে সম্প্রতিকালেও ভারতের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক সোনালি অধ্যায়ে বিরাজ করছে। বাংলাদেশের বড় বড় যতগুলো সমস্যা, যেমন- স্থল সীমানা, সমুদ্র সীমা, পানি সমস্যা এগুলো আমরা মোটামুটিভাবে প্রতিবেশি ভারতের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করেছি।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমরা পৃথিবীর মধ্যে একটা উদাহরণ সৃষ্টি করেছি, যে প্রতিবেশি রাষ্ট্র যুদ্ধ, ঝগড়া-ঝাটি না করে বড় বড় সমস্যার সমাধান করতে পারে। সেজন্য বাংলাদেশ এবং ভারত অবশ্যই সকলের প্রশংসা পাওয়া উচিত। আমাদের মধ্যে যদি আরও কিছু সমস্যা থাকে, তবে আমরা বিশ্বাস করি যে, আলোচনার মাধ্যমে আমরা সমাধান করতে পারব।’


আরশিকথা বাংলাদেশ সংবাদ

১৩ই ডিসেম্বর ২০২০
 

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Post Bottom Ad

test banner