পানিসাগরে সাম্প্রদায়িক হিংসার প্রতিবাদে কংগ্রেসের গণধর্ণাঃ আগরতলা

নিজস্ব প্রতিনিধি,আগরতলা,আরশিকথাঃ


বাংলাদেশে বিক্ষিপ্ত হিংসাত্মক ঘটনার রেশ ধরে ত্রিপুরা অশান্ত হয়ে উঠুক কংগ্রেস তা চায় না। ত্রিপুরাকে অশান্ত করে তুলতে বিজেপি আশ্রিত কিছু সংগঠন জঘন্য চক্রান্ত চালিয়েছে। এই অভিযোগ তুলে পিসিসিআই সভাপতি বীরজিৎ সিনহা। বুধবার কংগ্রেস ভবনে তিনি এক সাংবাদিক সম্মেলন করে পানিসাগর থানাধীন রোয়া বাজারের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেন। বীরজিৎ বাবু বলেন,রোয়া বাজারে সংখ্যালঘুদের ৭/৮টি দোকানে অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে। কয়েকটি বাড়িতে ভাঙচুর করা হয়েছে।চামটিলায় একটি মসজিদেও ভাঙচুর করা হয় বলে অভিযোগ করেন তিনি। সরকারের কাছে তিনি দাবি জানান সংখ্যালঘুদের মধ্যে যে ভীতির পরিবেশ সৃষ্টি করা হয়েছে তা দূর করতে যেন উদ্যোগ নেওয়া হয়। শান্তি মিটিং এর আয়োজন করার জন্য সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তিনি। পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী রাজধর্ম পালন করবেন বলে আশা ব্যক্ত করেন। দাবি জানান অবিলম্বে দুষ্কৃতিকারীদের গ্রেপ্তারের এবং ক্ষতিগ্রস্তদের উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ প্রদানের। পানিসাগরের ঘটনার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার কংগ্রেস ভবনের সামনে প্রদেশ কংগ্রেসের উদ্যোগে গণঅবস্থান করা হবে বলে জানান পিসিসি সভাপতি। বেলা ১১ টা থেকে শুরু হবে আট ঘণ্টার গণঅবস্থান।  তিনি আরো বলেন, ধর্মনিরপেক্ষ দেশে যে যার ধর্ম নিয়ে থাকবে। বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক হিংসার ঘটনা ঘটেছে বলে পাল্টা ত্রিপুরায় তা হবে এটা মেনে নেওয়া যায় না। হিন্দু-মুসলমান একই বৃন্তের দুটি কুসুম।

তিনি বলেন, কৈলাসহরে কালীমন্দির করার জন্য এক মুসলমান জায়গা দান করেছিলেন। আবার কিছু কিছু উস্কানিমূলক ঘটনার পিছনেও সংখ্যালঘুদের হাত রয়েছে। এদিকে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, টিডিএফ কোন দলই না। বাপ বেটার দল। ওরা মিথ্যা বলে। ১ নভেম্বর কংগ্রেসের প্রার্থী ঘোষণার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানান তিনি। প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করার কাজ চলছে। সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচন হলে মানুষ পুর ও নগর নির্বাচনে কংগ্রেসকেই বেছে নেবে বলে আশা ব্যক্ত করেন তিনি।


আরশিকথা ত্রিপুরা সংবাদ


ছবিঃ সুমিত কুমার সিংহ

২৭শে অক্টোবর ২০২১
 

Post a Comment

নবীনতর পূর্বতন