লহরীর মৃত্যুতে ৫লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ সহ সিআইডি তদন্তের ঘোষণা রাজ্য সরকারের - আরশি কথা

আরশিকথা ঝলক

Home Top Ad

Responsive Ads Here

Post Top Ad

Responsive Ads Here

মঙ্গলবার, ২৯ মে, ২০১৮

লহরীর মৃত্যুতে ৫লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ সহ সিআইডি তদন্তের ঘোষণা রাজ্য সরকারের

তন্ময় বনিক,আগরতলাঃ
চুরির ঘটনা প্রমাণ না হতেই চোর অপবাদ। এই কলঙ্ক নিয়ে বাঁচার ইচ্ছেটাই হারিয়ে গিয়েছিলো মেয়েটির। সময় থাকতে তখন কেউ তার পাশে দাঁড়ায়নি। তাই 'নিষ্ঠুর' এই পৃথিবীকে বিদায় জানাতে আত্মঘাতী হয় মেয়েটি। এখন অবশ্য বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, সংগঠন, রাজ্য সরকার তার পাঁশে দাঁড়িয়েছে। উপমুখ্যমন্ত্রী যিষ্ণু দেববর্মণ মৃতার পরিবারকে ৫ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণের ঘোষণা দিয়েছেন রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে। দেওয়া হয়েছে সিআইডি তদন্ত। উপমুখ্যমন্ত্রী স্পষ্ট জানিয়েছেন, দোষীদের কাউকে ছাড়া হবেনা। 
কিন্তু এত কিছুর পরও জীবন কি ফিরে পাওয়া যাবে? হয়তো দোষীরা গ্রেপ্তার হবে, শাস্তি পাবে! হয়তো মেয়েটি চুরি করেছে প্রমাণিত হবে!চুরি যদি করেও থাকে তার জন্য কি এতটা হেনস্থা হতে হবে? যে জীবন দিয়ে নীরবে প্রতিবাদ জানিয়ে পৃথিবী থেকে সরে গেলো মেয়েটি, আর কি কখনও পাওয়া যাবে লহরীকে? লহরী দেববর্মা, অক্সিলিয়াম গার্লস স্কুলের দ্বাদশ শ্রেণীর মেধাবী ছাত্রী। গত ২৪মে বান্ধবীদের সঙ্গে কিছু কেনাকাটার জন্য বিগ বাজারে গিয়েছিলো সে। সেখান থেকে বেড়িয়ে আসার সময় সিকিউরিটি গার্ড তাদের আটকে কর্তৃপক্ষের কাছে নিয়ে যায়। চুরির অপবাদে হেনস্থা করা হয় লহরীকে। তারপর তাকে স্কুল কর্তৃপক্ষের হাতে তুলে দেওয়া হয়। স্কুল কর্তৃপক্ষও ঘটনার সত্যতা যাচাই না করে লহরীকে স্কুল ও হোস্টেল থেকে বহিষ্কার করে। তখন তার করুণ আর্জি কেউই শুনছিলেন না। শেষপর্যন্ত মেয়েটি চুরির অপবাদ সহ্য করতে না পেরে আত্মঘাতী হয়। সোমবার(২৮মে) সন্ধ্যায় মেয়েটির মা দিপালী দেববর্মা সিধাই থানায় মামলা করেন। অভিযোগ করা হয়, মেয়েকে আত্মহত্যায় বাধ্য করা হয়েছে। বিগ বাজার এবং অক্সিলিয়াম গার্লস স্কুল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন তিনি। মঙ্গলবার(২৯মে) সকালে মোহনপুর মহকুমার বড়কাঁঠাল গ্রামে মৃতার বাড়িতে যান উপমুখ্যমন্ত্রী যিষ্ণু দেববর্মণ ও রাজস্বমন্ত্রী এনসি দেববর্মা। তারা কথা বলেন মেয়েটি মায়ের সঙ্গে। কথা বলেন অন্যান্য আত্মীয় পরিজনদের সঙ্গে। কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন লহরীর মা। আর্জি জানান দোষীদের যেন শাস্তি হয়। মেয়ের আত্মা যেন শান্তি পায়। সেখান থেকে ফিরে এসে দুপুরে মহাকরণে সাংবাদিক সম্মেলন করেন  উপমুখ্যমন্ত্রী। পাশে ছিলেন রাজস্বমন্ত্রী এন সি দেববর্মা ও আইনমন্ত্রী রতন লাল নাথ। উপমুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা দেন রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে মৃতার পরিবারকে পাঁচ লক্ষ টাকা দেওয়া হবে। এই ঘটনার জন্য দেওয়া হয় সিআইডি তদন্ত। উপমুখ্যমন্ত্রী নিজে এবিষয়ে রাজ্য পুলিশের মহানির্দেশক এ.কে শুক্লার সঙ্গে কথা বলেছেন। তিনি স্পষ্ট জানিয়েছেন দোষীদের কাউকে ছাড়া হবেনা। মর্মান্তিক এই ঘটনায় দুঃখপ্রকাশ করেন উপমুখ্যমন্ত্রী। মাত্র আড়াই বছর আগে স্বামী স্নেহ দেববর্মাকে হারিয়েছিলেন দিপালীদেবী। এখন হারালেন মেয়েকে। কি নিয়ে বাঁচবেন তিনি? শোকে পাথর হয়ে আছেন দিপালীদেবী। হঠাৎ  হঠাৎ  মেয়ের জন্য চিৎকার করে কেঁদে উঠছেন। 
এদিকে লহরীর মৃত্যুর ঘটনায় উত্তাল হয়ে উঠছে গোটা রাজ্য। বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সংগঠন এই ঘটনার প্রতিবাদে নেমেছে।
মঙ্গলবার(২৯মে) এসএফআই এর  পক্ষ থেকে সঠিক তদন্তের দাবিতে রাজ্য মহিলা কমিশনে ডেপুটেশন দেওয়া হয়। প্রতিনিধি দলে ছিলেন সংগঠনের রাজ্য সম্পাদক নবারুণ দেব ও সভানেত্রী নীলাঞ্জনা রায়।
এআইডিএসও এর পক্ষ থেকেও ডেপুটেশন দেওয়া হয় পশ্চিম জেলার পুলিশ সুপারের কাছে। তাদের দাবি ঘটনার দ্রুত তদন্ত করে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান করা ও ভবিষ্যতে যেন এধরনের ঘটনা না ঘটে তার জন্য যথোপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া। 
সোমবার(২৮মে) সন্ধ্যায় বিগ বাজারের সামনে বিক্ষোভ দেখায় এনএসইউআই। 
ঐদিনই রাতে আইপিএফটি স্বামী বিবেকানন্দ স্টেডিয়ামে মোমবাতি জ্বালিয়ে লহরীর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ঘটনার প্রতিবাদে সামিল হয়। এরাও দোষীদের কঠোর শাস্তির দাবি তোলে। মর্মান্তিক এই ঘটনায় সোশ্যাল সাইটগুলিতেও আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে। যে যার মতো করে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন। আওয়াজ উঠেছে বিগ বাজার বয়কট করার। এদিকে অক্সিলিয়াম স্কুল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধেও ক্ষোভে ফুঁসছেন অভিভাবকরা। এখন স্কুলে গ্রীষ্মের ছুটি চলছে। স্কুল খুললে অভিভাবকরা সম্মিলিতভাবে প্রতিবাদ জানানোর প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

ছবিঃ সুমিত কুমার সিংহ
২৯শে মে ২০১৮ইং                          

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Post Bottom Ad

Responsive Ads Here