সাইকেলে বিশ্ব-ভ্রমণে সোমেন দেবনাথ - আরশি কথা

আরশিকথা ঝলক

Home Top Ad

Responsive Ads Here

Post Top Ad

Responsive Ads Here

শুক্রবার, ৩ আগস্ট, ২০১৮

সাইকেলে বিশ্ব-ভ্রমণে সোমেন দেবনাথ

এখন থেকে প্রায় একুশ বছর আগে চৌদ্দ বছরের ছেলে সোমেন দেবনাথের মনকে অনুপ্রাণিত করেছিল একটি প্রবন্ধ "AIDS is more deadly than cancer"-- একজন এইডস রোগী নিজের ঘর-বাড়ি, প্রিয়জন ছাড়া হয়ে কী করে একাকী মৃত্যুর প্রতীক্ষায় থাকতে পারে --- এই ভীতিজনক অবস্থা থেকে নিজেকে এবং সমাজকে কি করে বাঁচানো সম্ভব, এই জিজ্ঞাসার উত্তর খুঁজতে গিয়েই শুরু হয়েছিল সোমেনের এই বিষয়টির ব্যাপারে জানা এবং অন্যকে জানানোর একাগ্রতা। একুশ বছর বয়সে সেই যুবকটি  পশ্চিমবঙ্গের সুন্দরবন অঞ্চলের বাসন্তি গ্রামে মা-বাবা, আর দুই ভাইকে ছেড়ে অজানা পৃথিবীতে পা রেখেছিলো একটি দু'চাকার সাইকেলকে সঙ্গী করে HIV/AIDS এর ভয়াবহতার ব্যাপারে মানুষকে সচেতন করতে। ২০০৪ থেকে ২০২০ এর মধ্যে ১৯১ টি দেশ সে সাইকেল নিয়ে পরিভ্রমণ করবে- এই তার পরিকল্পনা। স্বামী বিবেকানন্দের ধারণায় উদ্বুদ্ধ সেই যুবকটি তার মনের সাহস আর দৃঢ়তাকে সঙ্গী করে এবং ভারত সরকারের সহায়তা নিয়ে ২০০৪ সালে বেরিয়েছিল পৃথিবীর অচেনা- অজানা সব দেশ পাড়ি দিতে। 
চৌদ্দ বছর পৃথিবীর নানা প্রান্তে ঘুরে গত ২৫শে জুলাই সে এসে পৌঁছয় আমেরিকার আটলান্টা শহরেযেখানে অনেক অনেক উৎসাহী ভারতীয়দের মতো আমারও সৌভাগ্য হয় তাকে দেখার। ২৮শে জুলাই আমাদের স্থানীয় একদল বন্ধুদের সাথে এবং ২৯শে জুলাই আমার পরিবারের সাথে সোমেন কিছু সময় ছিল। দু'দিনই আমরা মন্ত্র-মুগ্ধের মতো শুনি তার গত চৌদ্দ বছর ধরে সাইকেল চালিয়ে বিভিন্ন দেশে ভ্রমণের অভিজ্ঞতার কথা। সেই কাহিনীগুলোর সাথে চালানো একটি slideshow দেখে আমরা বুঝতে পারছিলাম কতটা প্রতিকূল অবস্থার শিকার হতে হয়েছে তাকে একাধিকবার। 
সোমেনের বলার ধরণে একটা অপূর্ব নিজস্বতা রয়েছে, যা আমাদেরকে মুগ্ধ করেছে।তার কাছ থেকেই জানা হলো স্বামী বিবেকানন্দ ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চল ছাড়া বাকি সমস্ত রাজ্যে গিয়েছিলেন। আর সেই কথাটি মনে রেখে সোমেন ২০০৪ সালের ২৭শে মে সাইকেল নিয়ে তার যাত্রা শুরু করে ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের উদ্দেশ্যে। কথায় কথায় জানা গেলো সে ২০০৪ সালে কুড়িদিন কাটিয়েছে ত্রিপুরা রাজ্যেও। 
তার অভিজ্ঞতায় যেমন রয়েছে পৃথিবীর নামী-দামি ব্যক্তিত্বের সান্নিধ্য, তেমনি রয়েছে শ্বাসরুদ্ধকর দিন-যাপনের ঘটনা।শত্রু ভেবে আফগানিস্তানের তালিবানরা ওকে তিন সপ্তাহ গুহায় বন্দী করে রেখেছিলো আর আন্দামানের আদিম মানুষদের সাথেও তাকে দিন কাটাতে হয়েছিল তাদেরই মতো করে। এতো কিছুর পরেও সে তার চলা অব্যাহত রেখে ২০১৮ তে উত্তর আমেরিকা সহ ১৫০ টি দেশ এবং সেইসব দেশের লোকেদের কাছে পৌঁছে দিয়েছে HIV এবং AIDS এর সচেতনতার কথা। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন পরিবেশে দীর্ঘ চৌদ্দটি বছর কাটিয়ে সোমেন দেবনাথ তার ধৈর্য্য ও সহনশীলতার এমন এক পর্যায়ে পৌঁছে গেছে, যেখানে দাঁড়িয়ে জীবনকে সে দেখে নিঃস্পৃহ চোখে-- যেখানে সব চাহিদা আর হারানো-প্রাপ্তির মূল্য তার কাছে সমান। 
আমাদের মতো প্রবাসীদের জীবনে লোকজনের সাথে যোগাযোগগুলো অচেনার ভিত্তিই শুরু হয়। কেউ কেউ নিজগুনে হয়ে ওঠে আত্মার আত্মীয়। সোমেন দেবনাথ তাদেরই একজন। পৃথিবীর যে প্রান্তেই সে থাকুক, অন্তর থেকে সে তার মাটির খুব কাছাকাছি। তার সমস্ত কোথায় জড়িয়ে থাকে ভারতের তথা বাঙালির মূল্যবোধ এবং সংস্কৃতির ছোঁয়া। 
সোমেন দেবনাথের সাইকেলে ১৯১ টি দেশ পরিভ্রমণ সাফল্যমণ্ডিত হোক।  তার এই দৃঢ় সংকল্পের উদাহরণ লোকের মুখে মুখে ছড়িয়ে পড়ুক, আর নতুন প্রজন্ম শিখুক সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়ে জীবনে এগিয়ে চলতে। চৌদ্দ বছর আগের কথা বলতে গিয়ে সোমেন জানায় সাইকেলে সে মাতাবাড়ি, নীরমহল এবং ত্রিপুরার আরও বিভিন্ন জায়গায় পরিভ্রমণ করেছিল, যা আমাদের সকলের জন্য অত্যন্ত আনন্দের।
আমি ত্রিপুরাবাসীদের পক্ষ থেকে সোমেনকে জানাই আমাদের শুভকামনা। সোমেন, তোমারই বলা কথা বেঁচে থাকুক আমাদের মনে, অন্তর থেকে অন্তরে, "দেবতারে প্রিয় করি, প্রিয়রে দেবতা"।

প্রতিবেদনঃ জবা চৌধুরী, আমেরিকা

ছবিঃ সৌজন্যে প্রতিবেদক
৩রা আগস্ট ২০১৮ইং

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Post Bottom Ad

Responsive Ads Here