ত্রিপুরার লিটল ম্যাগাজিনের অতিসংক্ষিপ্ত ইতিহাস: পারিজাত দত্ত, ত্রিপুরা - আরশি কথা

আরশিকথা ঝলক

Home Top Ad

test banner

Post Top Ad

test banner

শুক্রবার, ৫ মার্চ, ২০২১

ত্রিপুরার লিটল ম্যাগাজিনের অতিসংক্ষিপ্ত ইতিহাস: পারিজাত দত্ত, ত্রিপুরা

স্বপ্ন নিয়ে যাত্রা শুরু, মৃত্যু অপেক্ষা করছে জেনেও তার নির্ভিক পদচারণা। লিটল ম্যাগাজিনের এই এক ট্র্যাজেডি। খোন্দকার আশরাফ হোসেনের ভাষায় ‘‘আমি লিটল ম্যাগাজিনকে তার লিটলনেস এবং আকাঙ্ক্ষার বিরাটত্বের ট্রাজিক সন্নিধি হিসাবেই দেখি। অকালমৃত্যু তার পরিণতি জেনেও ট্রাজিক নায়কের মতো তার উচ্চাশার বেলুন সে উড়ায় দু’হাতে।’’

সে দুশ বছর আগেকার কথা। বাংলা ভাষাতে উল্লেখযোগ্য সব সাময়িকপত্রের প্রকাশ ঘটে সে সময়।‘দিগদর্শণ’(১৮১৮), পরবর্তীকালে ‘বঙ্গদর্শন’ (১৮৭২), ‘ভারতবর্ষ’(১৯১৩) লিটল ম্যাগাজিন না হলেও, তার বিকাশের সূচনাপর্বকে সুনিশ্চিত করে। বাংলা ভাষাতে যথার্থ অর্থে লিটল ম্যাগাজিন বলতে প্রমথ চৌধুরী সম্পাদিত ‘সবুজপত্র’কেই(১৯১৪) অনেকে মনে করেন। এছাড়া ‘কল্লোল’(১৯২৩) থেকে শুরু করে ‘কৃত্তিবাস’, ও পরবর্তী পর্যায়ে নজরকাড়া বহুলিটল ম্যাগাজিনের প্রকাশ নিরন্তরভাবে হয়ে চলেছে।

হাংরি জেনারেশন মুভমেন্ট লিটল ম্যাগাজিন প্রকাশের গতিকে ত্বরান্বিত করে। বিনয় মজুমদার, শৈলেশ্বর ঘোষ, মলয় রায় চৌধুরীদের ভূমিকা এক্ষেত্রে সর্বজনবিদিত।

ত্রিপুরার প্রথম লিটল ম্যাগাজিন কোনটি, এ নিয়ে বিতর্ক থাকাই স্বাভাবিক, সে বিতর্ক এড়িয়ে বরং ইতিহাসের পাতা উল্টিয়ে নিলে দেখা যায়, সে দেড়শত বছরেরও বেশি সময় আগেকার কথা, রাজন্যশাসিত রাজ্যে লিটল ম্যাগাজিন সৃষ্টির বীজটি সংগোপনে সেসময় প্রোথিত হয়েছিল। সেই ‘জ্ঞান প্রসারিনী’, ১৮৬০ সালে প্রকাশিত ত্রিপুরার প্রথম মাসিক পত্রিকা।সম্পাদক কৈলাশচন্দ্র সরকার।এরপর একে একে ‘বার্ষিকী’ (১৮৭৬,‘পঞ্চপণ্ডিত’(১৮৭৯),‘ধূমকেতু’(১৯০৩),‘বঙ্গভাষা’র (১৯০৩)প্রকাশ । ১৯০৫ সালে প্রকাশিত হয় পাক্ষিক অরুণ’ সাময়িকপত্র। প্রায় একশ বছর আগে ১৯২৪ সালে ‘রবি’ সাহিত্যপত্র প্রকাশ ত্রিপুরার সাহিত্যচর্চায় এক নূতন যুগের সূচনা করে। স্বাধীনোত্তর কালে ত্রিপুরা ভারতে অন্তর্ভূক্তির পর এক উল্লেখযোগ্য প্রয়াস হরিদাস চক্রবর্তী ও নুরুল হুদা সম্পাদিত ‘সমীক্ষা’(১৯৫২)। ত্রিপুরার লিটল ম্যাগাজিনে বিগত শতাব্দীর ষাটের দশক উল্লেখযোগ্য। কৈলাশহর থেকে কবি পীযূষ রাউতের সম্পাদনায় ‘জোনাকি’ লিটল ম্যাগাজিন প্রকাশের ক্ষেত্রটিকে এক মাত্রায় পৌঁছে দেন। তবে প্রকৃত অর্থে ‘রাজ্যের প্রথম আধুনিক মনোভাবাপন্ন, খোলামেলা এক সঠিক ম্যাগ হিসেবে বিবেচিত হয় গান্ধার’। কল্যাণব্রত চক্রবর্তী, অজয় রায়দের সম্পাদনায় প্রকাশিত হয় এটি।পরবর্তী পর্যায়ে ‘ভাস্কর’, ‘নান্দীমুখ’, ‘পরমাণু’, ‘পৌণমী’, ‘সৈকত’, ‘জ্বালা’, ‘ব্রততী’, ‘সমকাল’, ‘একুশ শতক’, ‘মুখ’, ‘শাব্দিক’, ‘বাংলা কবিতা’, ‘রাজধানী আগরতলা’, ‘পূর্বাভাস’, ‘ঝিনুক’, ‘জ্ঞান বিচিত্রা’, ‘স্রোত’, ‘নীহারিকা’, ‘মানবী’, ‘পাখি সব করে রব’, ‘দৈনিক বজ্রকণ্ঠ’, ‘পদক্ষেপ’(স্থানাভাবে অসংখ্য উল্লেখযোগ্য নাম অনুল্লেখিত থাকায় ক্ষমাপ্রার্থী)সহ বহু লিটল ম্যাগাজিন ত্রিপুরার সাহিত্যচর্চার অঙ্গনকে সমৃদ্ধ করে চলেছে। প্রাতিষ্ঠানিক সাহিত্যপত্রের দৈন্যতায় এ রাজ্যে লেখক সৃষ্টির আঁতুড়ঘর প্রকৃত অর্থেই এ রাজ্য থেকে প্রকাশিত হয়ে চলা অসংখ্য লিটল ম্যাগাজিন।


পারিজাত দত্ত, ত্রিপুরা

বিশিষ্ট লেখক ও সরকারী আধিকারিক


৫ই মার্চ ২০২১

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Post Bottom Ad

test banner